সে আমাকে অনেক ভালোবাসে, কিন্তু আমার বিবস্ত্র ছবি চায়...

1
0
-1

আপু আমার সালাম নেবেন। আমার বয়স ২৩ বছর। ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে অনার্স ফাইনাল ইয়ারে পড়ছি। আমরা চার বোন এক ভাই। আমি সবার বড়, ভাই সবার ছোট, আমরা মায়ের সাথে নানা বাড়িতে থাকি। আমার বয়স যখন ১৫ তখন পারিবারিক কারণে বাবা আমাদের থেকে দূরে চলে যান। মামাদের সাহায্য নিয়ে আমাদের পরিবার চলে। আপু, ২০১২ সালে একটি ছেলে আমাকে প্রপোজ করে। ছেলেটি অনেক প্রভাবশালীর ছেলে হওয়ায় আমি সম্পর্ক করতে রাজি হই না। ও বার বার আমাকে বোঝায়। আমি বলি যে- আমার পরিবারের অবস্থা ভালো না, আমার সাথে তোমার বিয়েও সম্ভব না। ও আমাকে বলে ওকে কিছুদিন সময় দিতে। ওর বড় ভাইয়ের বিয়ের পরই আমাদের বিয়ে হবে। ওর পরিবার রাজি করাবে, আমি ওকে সময় দিই। আমার পরিবারে ওর কথা বলি। আমার পরিবার বলে ওর অভিভাবক নিয়ে আসতে। ও অনেক অজুহাত দেখায়।

২০১৩ সালে আমার বিয়ে ঠিক হয় অন্য একটি ছেলের সাথে। আমি ওকে বার বার বলি অন্তত বিয়েটা ঠিক করে রাখতে। ও আমার ব্যাপারটা গুরুত্বসহকারে নেয় না। যার সাথে আমার বিয়ে ঠিক হয় আমি তাকে কল করে সব বলে বিয়ে ভেঙে দিই। এতে আমার পরিবারের অনেক বদনাম হয়, বাড়ির সবাই খুব কষ্ট পায়। আমার বাড়ির সবাই ওকে বার বার বলে ওর পরিবারের কাউকে নিয়ে এসে কথা বলে অন্তত বিয়ে ঠিক করে রাখার জন্য। ওর পরিবার কোনোদিনই আমাকে মেনে নেবে না। এটি আমি জানতে পারি। ওর জন্য ওর পরিবার অন্য মেয়ে দেখছে, কিন্তু ও বার বার আমার পরিবারকে মিথ্যা আশা দেয়, অনেক মিথ্যা বলে যে আমাকে বিয়ে করবে। ধীরে ধীরে ওর মিথ্যার জন্য ওর প্রতি ঘৃণা বাড়ে, ওর সাথে ব্রেকআপ করি।

বার বার ভাবি আত্মহত্যা করব। পরিবারেও অনেক খারাপ হই। দিনগুলো অনেক কষ্টে যাচ্ছিল। ওর ছলনা আমি মেনে নিতে পারিনি। নিজের একাকীত্ব দূর করতে দীর্ঘ দিনের পরিচিত এক বন্ধু, ওর বাড়ি ভারতে, ও আমার তিন বছরের ছোট, ওর সাথে সব শেয়ার করতাম। এক সময় দুজন দুজনকে ভালোবেসে ফেলি। হঠাৎ মনে হয় ওর সাথে বিয়ে সম্ভব না। ও এখনও পড়ছে। ওর বিয়ে করতে অনেক দেরি। তাছাড়া আমাকে আমার পরিবারকে সাপোর্ট করতে হবে, আমি বিয়ে করে ভারত গেলে আমার পরিবার দেখবে কে! ওকে সব বুঝিয়ে বলি, ও অনেক কান্নাকাটি করে। ওর সাথে সম্পর্ক রাখি কিন্তু বুঝিয়ে বলি- আমাদের বিয়ে সম্ভব না। আমি ওর পাশে আছি, ও যেন নিজের ক্ষতি না করে। ও আমাকে অনেক ভালোবাসে কিন্ত ও সেক্স চ্যাট করতে চায়। আমার বিবস্ত্র ছবি চায়। আমি না দিলে অনেক কষ্ট পায়। আমি দিই কিন্ত নিজেকে অনেক ঘৃণা লাগে, নগণ্য মনে হয়। এগুলো মেনে নিতে পারি না। কিন্তু ওর পড়াশোনার কথা ভেবে, ও নিজের ক্ষতি করবে এজন্য ওর থেকে দূরে যেতে পারি না।

ওকে দূরে যাওয়ার কথা বললেই কান্নাকাটি করে। আমাদের সম্পর্কের কথা কেউই জানে না। ও বলে দুবছর অপেক্ষা করতে, ও আমাকে বিয়ে করবে। আমার সাবেক প্রেমিক এখনো আমার পরিবারকে মিথ্যা আশা দেয়। আমার পরিবারও ওর সাথে বিয়ে দিতে চায়। আমার ইদানীং কিছুই ভালো লাগে না। ইচ্ছা করে সারাজীবন একা কাটাই। ভবিষ্যতের চিন্তা, চাকরির পাবার চিন্তা সব নিয়ে অনেক ডিপ্রেশনে ভুগি। কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। কী করব? আপু অনুগ্রহ করে আমাকে কিছু পরামর্শ দেবেন।

প্রশ্নটি আমাদের ফেসবুক পেজে করেছেনঃ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন তরুণী।

চাইলে আপনিও নিজের মনের যে কোন প্রশ্ন করতে পারেন আমাদের আনসার সাইটে। প্রশ্ন করতে ও উত্তর জানতে ক্লিক করুন-http://answers.priyo.com/aq আর নিজের নাম গোপন রাখতে চাইলে প্রশ্ন পাঠাতে পারেন পেজের ইনবক্সে, সাথে লিখে দেবেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক। আমাদের ফেসবুক পেজ লিঙ্ক https://www.facebook.com/priyo.answers?fref=ts এছাড়াও নিজের ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে সরাসরি লগইন করতে পারেন আমাদের সাইটে।

স্বাস্থ্য হোক বা সৌন্দর্য, খেলা হোক বা সিনেমা, দাম্পত্য হোক বা প্রেম, অফিসের সমস্যা হোক বা আইনি, বিজ্ঞান হোক বা রাজনীতি, স্কুল কলেজ হোক বা সামাজিক/পারিবারিক কোন সমস্যা... যে কোন সমস্যা লিখে জানান আমাদের। আপনার হয়ে সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করবো আমরা। সুন্দর প্রশ্ন করে প্রতিদিন জিতে নিতে পারেন ৫০ টাকার মোবাইল ব্যালান্স!

আপনার প্রশ্ন, বিশেষজ্ঞের উত্তর।
আপনার জন্যই অপেক্ষায় আছি আমরা!

ছবিটি রূপক, ফটো সোর্স- GROW Counseling

1 answer

1
0
-1

মাত্র ২৩ বছর বয়সে পর পর দুটি ভুল সিদ্ধান্ত ও ভুল সম্পর্ক... তোমার চিঠি পড়ে আসলেই খুব খারাপ লাগছে আপু। দেখো, জীবনে ভুল সম্পর্ক আসতেই পারে। ভালোবাসার সময়ে আমরা কেউই বুঝে উঠতে পারি না যে সম্পর্কটি আসলে ভুল। কিন্তু হ্যাঁ, একটি ভুল সম্পর্ক থেকে মুক্তি পাবার জন্য আরও একটি ভুল সম্পর্কে জড়িয়ে যাওয়াটা হচ্ছে জেনেশুনে আত্মহত্যার সামিল। আজকাল ফেসবুকের যুগে সম্পর্ক গড়ে ওঠা যেন ডাল ভাত হয়ে গিয়েছে। একটি সম্পর্ক ছেদ হতে না হতেই আমরা আরেকটি সম্পর্কে জড়িয়ে যাচ্ছি কিছু চিন্তা না করেই। কিন্তু "মনের কথা বলার মানুষ চাই" বা "সাপোর্ট চাই" এই ধরণের ভাবনা থেকে কখনোই একটা হেলদি প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে না। উঠতে পারে না।

প্রথমেই বলি আপু, এতটা বোকা হওয়া কি ঠিক? না দেখে না জেনে ভিনদেশি একটা ছেলের সাথে সম্পর্ক করেছো এবং তাঁকে নিজের বিবস্ত্র ছবি দিয়ে দিচ্ছো... এমন একটা বোকামি কীভাবে করতে পারছো তুমি? তোমার কি একবারও মনে হচ্ছে না যে ছেলেটির উদ্দেশ্য খারাপ? আজকাল যেখানে বহু বছরের প্রেমিক, এমনকি স্বামী পর্যন্ত প্রেমিকা বা স্ত্রীর বিবস্ত্র ছবি অনলাইনে ছেড়ে দেয় বা বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করে... সেখানে তুমি কীভাবে কেবল অনলাইনের প্রেমে একটা ছেলেকে নিজের বিবস্ত্র ছবি দিচ্ছ? তোমার কি একবারও মনে হচ্ছে না যে ছেলেটি যদি আসলেই তোমাকে ভালোবাসতো ও সম্মান করতো, তাহলে সে তোমার এমন ছবি চাইতো না। বা এমন ছবি জন্য মানসিক চাপ দিত না?

দেখো আপু, একটি সহজ কথা বলি। পৃথিবীতে নিজের জীবন, নিজের সম্মান সবার আগে। দুনিয়ায় কেউ কারো জন্য মরে যায় না। তুমি সম্পর্ক ভেঙে ফেললে বা নগ্ন ছবি না দিলে একটি ছেলে মরে যাবে... এইসব সিনেম্যাটিক রোমান্টিক ভাবনা ভুলেও মনে স্থান দিও না। কিচ্ছু হবে না। যে সম্পর্কের কোন ভবিষ্যৎ নেই, যাকে তুমি কখনো বিয়ে করতে পারবে না... অকারণে সেই মানুষের সাথে সম্পর্ক রেখে নিজের জীবন ও ক্যারিয়ারের কেন ক্ষতি করছো? এখন তোমার সময়টা মন দিয়ে লেখাপড়া শেষ করে ক্যারিয়ার গড়ার, যেহেতু পরিবারকে সাপোর্ট তোমাকেই করতে হবে। জীবনে প্রেম ভালোবাসার সময় অনেক পাবে আপু, কিন্তু ক্যারিয়ার গড়ার সময়টা একবার পার হয়ে গেলে আর কোনদিন ফিরে পাবে না।

জীবন তোমার, বাকি সিদ্ধান্ত তোমার হাতে। আমার যা বলার আমি বলে দিলাম। কেবল একটাই জিনিসই মনে রাখবেন, একটি ছেলেকে বিয়ে করাই কেবল জীবন না। জীবন মানে আরও অনেক বড় একটা কিছু। এটা তোমার হাতে যে নিজের জীবনকে তুমি গড়ে তুলবে নাকি ধ্বংস করে দেবে কোন পুরুষের জন্য।

পরামর্শ দিয়েছেন-
রুমানা বৈশাখী

লেখক ও রন্ধনশিল্পী
এডিটর ইন চার্জ (প্রিয় লাইফ-সায়েন্স ও প্রিয় আনসার)
প্রিয়.কম

বিশেষ দ্রষ্টব্য
আমি কোন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, চিকিৎসক বা আইনজীবী নই। কাউন্সিলিং-এর ওপরে যখনই কোন শর্ট কোর্স হয়েছে বা কর্মশালা হয়েছে, আমি সেখানে যোগ দিয়েছি। আমার বিদ্যা বলতে এটুকুই। সবমিলিয়ে কেবলই একজন সাধারণ লেখক আমি, যিনি বন্ধুর মতন কারো মনের কথা শুনতে পারেন ও তৃতীয় ব্যক্তির দৃষ্টিকোণ থেকে কিছু পরামর্শ দিতে পারেন। প্রিয় আনসারের পাতায় ঠিক সেই কাজটিই আমি করে থাকি। পরামর্শ গুলো কাউকে মানতেই হবে এমন কোন কথা নেই। কেউ যদি নতুন কোন দিক নির্দেশনা পান বা নিজের সমস্যাটি বলতে পেরে কারো মন হালকা লাগে, সেটুকুই আমার সার্থকতা। কেউ মুখোমুখি আমার সাথে কথা বলতে চাইলে অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেতে কল করুন- শফিক-০১৭১৭-৫০৯৯৮০ নম্বরে। (শর্ত প্রযোজ্য)

Tags

অনার্স (21) অনিয়মিত পিরিয়ড (70) অবহেলা (46) অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক (15) অসম প্রেম (22) অ্যালার্জি (15) আইন (34) ইসলাম (52) ইসলাম ধর্ম (18) উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (27) ওয়েবসাইট (34) ঔষধ (19) কম্পিউটার (28) কষ্ট (117) কালো দাগ (17) কেনাকাটা (21) কোথায় পাবো (18) ক্যারিয়ার (81) ক্রিকেট (23) ক্রিম (24) খরচ (15) খাবার (15) গর্ভপাত (16) ঘুম (16) চাকরি (18) চিকিৎসা (17) চুলকানি (19) চুল পড়া (47) চুল পড়া সমস্যা (18) চুলের যত্ন (15) জাতীয় পরিচয়পত্র (17) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় (14) জ্বর (21) ডার্ক সার্কেল (14) ডিভোর্স (42) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (14) তারুণ্যে প্রেম (94) তালাক (21) তৈলাক্ত ত্বক (20) ত্বকের যত্ন (19) দাঁতের চিকিৎসা (15) দাম্পত্য (119) দাম্পত্যে সমস্যা (22) দূর করার উপায় (29) দোটানা (99) ধর্ম (30) নামাজ (22) পরকীয়া (47) পরিবার (90) পরীক্ষা (15) পারিবারিক সমস্যা (30) পিরিয়ড (38) প্রতারণা (51) প্রযুক্তি (24) প্রেম (193) প্রেমের প্রস্তাব (15) প্রেমের সম্পর্ক (30) পড়াশোনা (166) ফেসবুক (54) ফেসবুক আইডি (15) বন্ধুত্ব (20) বাংলাদেশ (60) বিদেশে পড়াশোনা (22) বিয়ে (155) ব্যবসা (23) ব্যায়াম (21) ব্রণ (40) ব্রণ সমস্যা (15) ব্রেকআপ (16) ভালোবাসা (365) ভালোলাগা (39) ভয় (82) মাথাব্যথা (19) মাথাব্যথা (24) মানসিক কষ্ট (62) মানসিক সমস্যা (36) মুক্তির উপায় (48) মোটা হওয়ার উপায় (17) মোটা হতে চাই (29) মোবাইল (23) মোবাইল ফোন (23) রাগ (19) লম্বা হতে চাই (17) ল্যাপটপ (24) শারীরিক অসুস্থতা (18) শারীরিক ব্যায়াম (19) শারীরিক মিলন (29) শারীরিক সমস্যা (29) শারীরিক সম্পর্ক (101) সন্দেহ (21) সমস্যা (16) সম্পর্ক (53) সর্দি (19) সেরা প্রশ্ন (178) স্বপ্ন (30) স্বপ্ন ও ব্যাখ্যা (18) স্বপ্নের ব্যাখ্যা (28) স্বাস্থ্য (41) হতাশা (24) হস্তমৈথুন (18)